শুক্রবার , জানুয়ারি ২৭ ২০২৩
Home / সারা দেশ / কুড়িগ্রামে আড়াই লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট এম এ কে লিমনঃ কুড়িগ্রামে ধরলা, তিস্তা, ব্রহ্মপুত্রসহ সবকটি নদ-নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। সেতু পয়েন্টে ধরলার পানি বিপদসীমার ৭৯ সেন্টিমিটার, চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি ৭৫ সেন্টিমিটার ও নুনখাওয়া পয়েন্টে ৩৯ সেন্টিমিটার এবং কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি ২২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে করে জেলার ৯ উপজেলার ৪ শতাধিক চরও দ্বীপচরসহ নদ-নদীর তীরবতর্ী এলাকার প্রায় দুই লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বন্যা কবলিত এলাকাগুলোতে দেখা দিয়েছে শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট। লোকজন আশ্রয় নিতে শুরু করেছে পার্শ্ববতর্ী উঁচ বাঁধ, পাকা সড়ক ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। এসব এলাকার কাঁচা-পাকা সড়ক তলিয়ে যাওয়ায় বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা। নদ-নদী তীরবতর্ী ও চরাঞ্চলের পানিবন্দি কিছু পরিবার নৌকার অভাবে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে উঁচু জায়গায় যেতে পারছেন না। অনেক পরিবার অন্যের নৌকা ধার নিয়ে উঁচু স্থানে আসতে শুরু করেছেন। চরাঞ্চলগুলোতে শুকনো জায়গার না থাকায় গবাদি পশু নিয়ে বিপাকে পড়েছেন বন্যা কবলিত মানুষজন।তিস্তার পানির প্রবল স্রোতে উলিপুর উপজেলার গুনাইগাছ ইউনিয়নের নাগড়াকুড়া এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের টি বাঁধের দেড়শ ফুট পানিতে ভেসে গেছে। সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের পোড়ার চর এলাকার মিজানুর রহমান জানান, এই চরে যাদের নৌকা আছে তারা জিনিসপত্র গুছিয়ে নিয়ে উঁচু স্থানে চলে যাচ্ছে। আবার কেউ কেউ আত্মীয় স্বজনের নৌকায় উঁচু জায়গার চলে যাচ্ছে। কিন্তু যাদের নৌকা নেই বিপাকে পড়েছে তারা। কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার পাঁচগাছী ইউনিয়নের মহির উদ্দিন জানান, বন্যার পানি বৃদ্ধি পেতে পেতে ঘরের ভিতর এক কমর পর্যএবং পানি হয়েছে। ঘরের চৌকি ইট দিয়ে ভাসিয়ে কোন রকমে কষ্ট করে ছিলাম যে পানি কমা শুরু হলে আর অন্যত্র যেতে হবে না। কিন্তু পানি কমার পরিবর্তে শুধু বাড়তেছে। বাড়িতে আর থাকার উপায় নাই। এজন্য সড়কে এসে বাড়ির কয়েকটি টিন দিয়ে ছাপড়া ঘর তুলতেছি। এখানেই বউ বাচ্চা নিয়ে থাকতে হবে। রান্না করার উপায় নাই। শনিবার থেকে শুধু কাঠাল খেয়ে আছি। এখন পর্যন্ত কোন সাহায্য সহযোগীতা পাই নাই।উলিপুর উপজেলার সাহেবের আলগা ইউনিয়নের দই খাওয়ার চরের কালু মিয়া জানান, এই চরে আমরা শতাধিক পরিবার বসবাস করছি। সব পরিবাারের ঘর-বাড়িতে পানি ঢুকে পড়েছে। যাদের নৌকা আছে তারা প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে উঁচু স্থানে যাচ্ছে আর যাদের নৌকা নেই তার মাচা উঁচু করে গরু ছাগল নিয়ে কষ্টে দিন পার করতেছে। পানি আরো বাড়তে থাকলে এই চরের সব মানুষকে অন্যত্র আশ্রয় নিতে হবে। উলিুপর উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিএম আবুল হোসেন জানান, আমার ইউনিয়নটি ব্রহ্মপুত্র নদের অববাহিকায় অবস্থিত। এখানে চরাঞ্চলসহ প্রায় ২ হাজার পরিবার পানিবন্দি জীবন যাবন করছে। কিছু পরিবার উঁচু সড়কে আশ্রয় নিচ্ছে। সরকারী ভাবে এখনও কোন ত্রাণ সহায়তা না পাওয়ায় বন্যার্তদের মাঝে বিতরণ করা সম্ভব হয়নি। এছাড়াও বজরা ইউনিয়নের অসংখ্য এলাকার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। কুড়িগ্রামের অতিারিক্ত জেলা প্রশাসক জেলা প্রশাসক মো: হাফিজুর রহমান জানান, জেলা প্রশাসন থেকে ২৮০ মেট্রিক টন জিআর চাল, ২হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার, ৬ লাখ ৭৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। যা আজ (১৪ জুলাই) বিতরণ শুরু হয়েছে। এছাড়াও নতুন করে ১ হাজার মেট্রিক টন চাল, ২০ লাখ টাকা ও ১০ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার চেয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। প্রতিটি উপজেলায় কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। জেলার সকল সরকারী দপ্তরের প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। যেকোন পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমরা প্রস্তুুতি নিয়ে রেখেছি।কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম জানান, গত ৩০ ঘন্টায় দুপুর ১২ টা পর্যন্ত ধরলা নদীর পানি সেতু পয়েন্টে ৪৪ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৭৯ সেন্টিমিটার, তিস্তার পানি কাউনিয়া পয়েন্টে ২৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ২২ সেন্টিমিটার এবং ব্রহ্মপুত্রের পানি নুনখাওয়া পয়েন্টে ৪৩ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৩৯ সেন্টিমিটার এবং চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি ৪৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৭৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

কুড়িগ্রামে আড়াই লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট এম এ কে লিমনঃ কুড়িগ্রামে ধরলা, তিস্তা, ব্রহ্মপুত্রসহ সবকটি নদ-নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। সেতু পয়েন্টে ধরলার পানি বিপদসীমার ৭৯ সেন্টিমিটার, চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি ৭৫ সেন্টিমিটার ও নুনখাওয়া পয়েন্টে ৩৯ সেন্টিমিটার এবং কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি ২২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে করে জেলার ৯ উপজেলার ৪ শতাধিক চরও দ্বীপচরসহ নদ-নদীর তীরবতর্ী এলাকার প্রায় দুই লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বন্যা কবলিত এলাকাগুলোতে দেখা দিয়েছে শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট। লোকজন আশ্রয় নিতে শুরু করেছে পার্শ্ববতর্ী উঁচ বাঁধ, পাকা সড়ক ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। এসব এলাকার কাঁচা-পাকা সড়ক তলিয়ে যাওয়ায় বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা। নদ-নদী তীরবতর্ী ও চরাঞ্চলের পানিবন্দি কিছু পরিবার নৌকার অভাবে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে উঁচু জায়গায় যেতে পারছেন না। অনেক পরিবার অন্যের নৌকা ধার নিয়ে উঁচু স্থানে আসতে শুরু করেছেন। চরাঞ্চলগুলোতে শুকনো জায়গার না থাকায় গবাদি পশু নিয়ে বিপাকে পড়েছেন বন্যা কবলিত মানুষজন।তিস্তার পানির প্রবল স্রোতে উলিপুর উপজেলার গুনাইগাছ ইউনিয়নের নাগড়াকুড়া এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের টি বাঁধের দেড়শ ফুট পানিতে ভেসে গেছে। সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের পোড়ার চর এলাকার মিজানুর রহমান জানান, এই চরে যাদের নৌকা আছে তারা জিনিসপত্র গুছিয়ে নিয়ে উঁচু স্থানে চলে যাচ্ছে। আবার কেউ কেউ আত্মীয় স্বজনের নৌকায় উঁচু জায়গার চলে যাচ্ছে। কিন্তু যাদের নৌকা নেই বিপাকে পড়েছে তারা। কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার পাঁচগাছী ইউনিয়নের মহির উদ্দিন জানান, বন্যার পানি বৃদ্ধি পেতে পেতে ঘরের ভিতর এক কমর পর্যএবং পানি হয়েছে। ঘরের চৌকি ইট দিয়ে ভাসিয়ে কোন রকমে কষ্ট করে ছিলাম যে পানি কমা শুরু হলে আর অন্যত্র যেতে হবে না। কিন্তু পানি কমার পরিবর্তে শুধু বাড়তেছে। বাড়িতে আর থাকার উপায় নাই। এজন্য সড়কে এসে বাড়ির কয়েকটি টিন দিয়ে ছাপড়া ঘর তুলতেছি। এখানেই বউ বাচ্চা নিয়ে থাকতে হবে। রান্না করার উপায় নাই। শনিবার থেকে শুধু কাঠাল খেয়ে আছি। এখন পর্যন্ত কোন সাহায্য সহযোগীতা পাই নাই।উলিপুর উপজেলার সাহেবের আলগা ইউনিয়নের দই খাওয়ার চরের কালু মিয়া জানান, এই চরে আমরা শতাধিক পরিবার বসবাস করছি। সব পরিবাারের ঘর-বাড়িতে পানি ঢুকে পড়েছে। যাদের নৌকা আছে তারা প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে উঁচু স্থানে যাচ্ছে আর যাদের নৌকা নেই তার মাচা উঁচু করে গরু ছাগল নিয়ে কষ্টে দিন পার করতেছে। পানি আরো বাড়তে থাকলে এই চরের সব মানুষকে অন্যত্র আশ্রয় নিতে হবে। উলিুপর উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিএম আবুল হোসেন জানান, আমার ইউনিয়নটি ব্রহ্মপুত্র নদের অববাহিকায় অবস্থিত। এখানে চরাঞ্চলসহ প্রায় ২ হাজার পরিবার পানিবন্দি জীবন যাবন করছে। কিছু পরিবার উঁচু সড়কে আশ্রয় নিচ্ছে। সরকারী ভাবে এখনও কোন ত্রাণ সহায়তা না পাওয়ায় বন্যার্তদের মাঝে বিতরণ করা সম্ভব হয়নি। এছাড়াও বজরা ইউনিয়নের অসংখ্য এলাকার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। কুড়িগ্রামের অতিারিক্ত জেলা প্রশাসক জেলা প্রশাসক মো: হাফিজুর রহমান জানান, জেলা প্রশাসন থেকে ২৮০ মেট্রিক টন জিআর চাল, ২হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার, ৬ লাখ ৭৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। যা আজ (১৪ জুলাই) বিতরণ শুরু হয়েছে। এছাড়াও নতুন করে ১ হাজার মেট্রিক টন চাল, ২০ লাখ টাকা ও ১০ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার চেয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। প্রতিটি উপজেলায় কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। জেলার সকল সরকারী দপ্তরের প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। যেকোন পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমরা প্রস্তুুতি নিয়ে রেখেছি।কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম জানান, গত ৩০ ঘন্টায় দুপুর ১২ টা পর্যন্ত ধরলা নদীর পানি সেতু পয়েন্টে ৪৪ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৭৯ সেন্টিমিটার, তিস্তার পানি কাউনিয়া পয়েন্টে ২৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ২২ সেন্টিমিটার এবং ব্রহ্মপুত্রের পানি নুনখাওয়া পয়েন্টে ৪৩ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৩৯ সেন্টিমিটার এবং চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি ৪৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৭৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এম এ কে লিমনঃ
কুড়িগ্রামে ধরলা, তিস্তা, ব্রহ্মপুত্রসহ সবকটি নদ-নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। সেতু পয়েন্টে ধরলার পানি বিপদসীমার ৭৯ সেন্টিমিটার, চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি
৭৫ সেন্টিমিটার ও নুনখাওয়া পয়েন্টে ৩৯ সেন্টিমিটার এবং কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি ২২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।
এতে করে জেলার ৯ উপজেলার ৪ শতাধিক চরও দ্বীপচরসহ নদ-নদীর তীরবতর্ী এলাকার প্রায় দুই লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বন্যা কবলিত এলাকাগুলোতে দেখা দিয়েছে শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট। লোকজন আশ্রয় নিতে শুরু করেছে পার্শ্ববতর্ী উঁচ বাঁধ, পাকা সড়ক ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। এসব এলাকার কাঁচা-পাকা সড়ক তলিয়ে যাওয়ায় বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা। নদ-নদী তীরবতর্ী ও চরাঞ্চলের পানিবন্দি কিছু পরিবার নৌকার
অভাবে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে উঁচু জায়গায় যেতে পারছেন না। অনেক পরিবার অন্যের নৌকা ধার নিয়ে উঁচু স্থানে আসতে শুরু করেছেন।
চরাঞ্চলগুলোতে শুকনো জায়গার না থাকায় গবাদি পশু নিয়ে বিপাকে পড়েছেন বন্যা কবলিত মানুষজন।তিস্তার পানির প্রবল স্রোতে উলিপুর উপজেলার গুনাইগাছ ইউনিয়নের নাগড়াকুড়া এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের টি
বাঁধের দেড়শ ফুট পানিতে ভেসে গেছে।
সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের পোড়ার চর এলাকার মিজানুর রহমান জানান, এই চরে যাদের নৌকা আছে তারা জিনিসপত্র
গুছিয়ে নিয়ে উঁচু স্থানে চলে যাচ্ছে। আবার কেউ কেউ আত্মীয় স্বজনের নৌকায় উঁচু জায়গার চলে যাচ্ছে। কিন্তু যাদের নৌকা নেই বিপাকে পড়েছে তারা।
কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার পাঁচগাছী ইউনিয়নের মহির উদ্দিন জানান, বন্যার পানি বৃদ্ধি পেতে পেতে ঘরের ভিতর এক কমর পর্যএবং পানি হয়েছে। ঘরের চৌকি ইট দিয়ে ভাসিয়ে কোন রকমে কষ্ট
করে ছিলাম যে পানি কমা শুরু হলে আর অন্যত্র যেতে হবে না। কিন্তু পানি কমার পরিবর্তে শুধু বাড়তেছে। বাড়িতে আর থাকার উপায়
নাই। এজন্য সড়কে এসে বাড়ির কয়েকটি টিন দিয়ে ছাপড়া ঘর তুলতেছি। এখানেই বউ বাচ্চা নিয়ে থাকতে হবে। রান্না করার
উপায় নাই। শনিবার থেকে শুধু কাঠাল খেয়ে আছি। এখন পর্যন্ত কোন সাহায্য সহযোগীতা পাই নাই।উলিপুর উপজেলার সাহেবের আলগা ইউনিয়নের দই খাওয়ার চরের কালু মিয়া জানান, এই চরে আমরা শতাধিক পরিবার বসবাস করছি। সব
পরিবাারের ঘর-বাড়িতে পানি ঢুকে পড়েছে। যাদের নৌকা আছে তারা প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে উঁচু স্থানে যাচ্ছে আর যাদের নৌকা নেই তার মাচা উঁচু করে গরু ছাগল নিয়ে কষ্টে
দিন পার করতেছে। পানি আরো বাড়তে থাকলে এই চরের সব মানুষকে অন্যত্র আশ্রয় নিতে হবে।
উলিুপর উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিএম আবুল হোসেন জানান, আমার ইউনিয়নটি ব্রহ্মপুত্র নদের অববাহিকায় অবস্থিত। এখানে চরাঞ্চলসহ প্রায় ২ হাজার পরিবার পানিবন্দি
জীবন যাবন করছে। কিছু পরিবার উঁচু সড়কে আশ্রয় নিচ্ছে।
সরকারী ভাবে এখনও কোন ত্রাণ সহায়তা না পাওয়ায় বন্যার্তদের মাঝে বিতরণ করা সম্ভব হয়নি।
এছাড়াও বজরা ইউনিয়নের অসংখ্য  এলাকার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন।
কুড়িগ্রামের অতিারিক্ত জেলা প্রশাসক জেলা প্রশাসক মো: হাফিজুর রহমান জানান, জেলা প্রশাসন থেকে ২৮০ মেট্রিক টন
জিআর চাল, ২হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার, ৬ লাখ ৭৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। যা আজ (১৪ জুলাই) বিতরণ শুরু হয়েছে।
এছাড়াও নতুন করে ১ হাজার মেট্রিক টন চাল, ২০ লাখ টাকা ও ১০ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার চেয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে।
প্রতিটি উপজেলায় কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। জেলার সকল সরকারী দপ্তরের প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। যেকোন পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমরা প্রস্তুুতি নিয়ে
রেখেছি।কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম জানান, গত ৩০ ঘন্টায় দুপুর ১২ টা পর্যন্ত ধরলা
নদীর পানি সেতু পয়েন্টে ৪৪ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে
বিপদসীমার ৭৯ সেন্টিমিটার, তিস্তার পানি কাউনিয়া পয়েন্টে ২৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ২২ সেন্টিমিটার এবং ব্রহ্মপুত্রের পানি নুনখাওয়া পয়েন্টে ৪৩ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে
বিপদসীমার ৩৯ সেন্টিমিটার এবং চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি ৪৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৭৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

About admin

Check Also

ভূরুঙ্গামারীতে বিজিবির কম্বল বিতরণ

ভূরুঙ্গামারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীর সীমান্তবর্তী দুর্গম চরাঞ্চলের শীতার্ত দুস্থ মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করেছে …

কমেছে শীতের তীব্রতা, স্বস্তি ফিরেছে জনজীবনে

দেশজুড়ে দিন ও রাতের তাপমাত্রা বাড়ায় কমেছে শীতের তীব্রতা। স্বস্তি ফিরেছে জনজীবনে। তবে এখনও তীব্র …

নাগেশ্বরীর বামনডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে মাধরের ঘটনায় ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান রনিকে মারধরের মামলায় এজাহারনামীয় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *