বুধবার , মে ২২ ২০২৪
Home / সারা দেশ / পাটের দাম কম থাকায় , পাটকাঠি বিক্রি করে লাভের মুখ দেখছেন হোসেনপুরের চাষীরা **

পাটের দাম কম থাকায় , পাটকাঠি বিক্রি করে লাভের মুখ দেখছেন হোসেনপুরের চাষীরা **

মোঃ এখলাছ উদ্দিন (রিয়াদ), বিশেষ প্রতিনিধিঃ

কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে চলতি মৌসুমে অনুকূল আবহাওয়া থাকায় উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে পাটের
আবাদ   হয়েছিল ব্যাপকভাবে । কৃষকের সঠিক পরিচর্যা ও যত্নেরগুনে পাটের গাছগুলো অনেক লম্বা ও
মোটা আঁশে পরিণত হয়েছিল। কিন্তু পানির অভাবে পাট জাগ দিতে না পারা, শ্রমিক খরচ ও বন্যাসহ
নানাবিধ কারণে সঠিক সময়ে পাটের আঁশ সংগ্রহ করতে পারেনি স্থানীয় কৃষক। এদিকে পাটের বীজ
ক্রয়, জমি চাষ, পাটক্ষেতে নিড়ানি, ও পাট কর্তনসহ আনুষঙ্গিক খরচ হয়েছিল  কৃষকের অনেক বেশি।
কিন্তু সঠিক সময়ে পাটের আঁশ সংগ্রহ করতে না পারায় কৃষকের লোকসান গুনতে হয়েছে। তবে  এখন
দেশে পাটখড়ির  ব্যাপক চাহিদা থাকায় ওই পাটকাঠির দাম অনেক বেশি। ফলে  পাট চাষের যে
লোকসান হয়েছিল, পাটকাঠি অধিক দামে বিক্রি করে লাভের মুখ দেখতে শুরু করেছে  স্থানীয় কৃষকরা।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় সরকার নির্ধারিত ভালো মানের তোষাপাটের বাজার ১৪শ
টাকাথেকে ১৪৫০টাকা, নিম্নমানের পাটের দাম ১৩শ টাকা ১৩৫০টাকা দামে ক্রয় করা হচ্ছে। কিন্তু
কৃষকের উৎপাদিত খরচ বর্তমান  পাটের বাজারমূল্য চেয়ে বেশি।
সরেজমিনে উপজেলার জিনারী ইউনিয়নের চরকাটিহারী, চর হাজিপুর, সিদলা ইউনিয়নের সাহেবের
চর, পিতলগঞ্জ, আড়াই বাড়িয়া ইউনিয়নের চর জামাইল গ্রামে ঘুরে দেখা গেছে, এলাকায় প্রতিটি গ্রামে
গ্রামে পাইকারি ক্রেতারা পাটকাঠি কিনতে ব্যস্ত। পাটকাঠি মন প্রতি ৬শটাকা থেকে সাড়ে ৭০০ টাকা মণ
দরে বিক্রি হচ্ছে। কয়েকটি পাটকাঠি দিয়ে বাঁধা আঁটি  ৫০থেকে ৬০ টাকা বিক্রি করছেন কৃষক।
এসময় উপজেলার চরকাটিহারী গ্রামের পাট চাষী স্বপন মিয়া, সাহেবের চর গ্রামের পাট চাষী আবুল
হোসেন, জামাইল গ্রামের পাট চাষী সোহাগ মিয়াসহ অনেকেই জানান, পাট চাষ করে যে লোকসান
হয়েছিল এখন পাটকাঠি বিক্রি করে লাভবান হতে সক্ষম হচ্ছি। আগামী বছর পাটের আবাদ অধিক
করবেন বলেও জানান তারা।
এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ ইমরুল কায়েস জানান, উপজেলায় পাটকাঠি অধিক চাহিদা
থাকায়  পাট চাষীরা বেশি দামে বিক্রি করতে সক্ষম হচ্ছেন।

About admin

Check Also

এবছরও উপজেলার শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতি পেয়েছে ফুলবাড়ী ডিগ্রী কলেজ

মাহফুজার রহমান মাহফুজ, ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের সীমান্তবর্তী উপজেলা ফুলবাড়ী। স্বাধীনতা অর্জনের দুই বছরের …

কুড়িগ্রামে প্রিজাইডিং অফিসারদের প্রশিক্ষণে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রাম জেলায় অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচন করার নিমিত্তে ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ২য় …

রংপুরে কিশোর গ্যাংয়ের মুলহোতা মেরাজ গ্রেফতার

রেখা মনি,রংপুর ব্যুরোঃ রংপুরে র‌্যাবের জালে বন্দি কিশোর গ্যাংয়ের মুলহোতা মেরাজ।কয়েকদিন আগে রংপুর নগরীর গণেশপুরে হোটেল ব্যবসায়ীর উপর হামলাকারী কিশোর গ্যাংয়ের মূলহোতা মো.মেরাজ (২০)কে গ্রেফতার করেছে রংপুর র‌্যাব-১৩।র‌্যাব বলছেন রংপুর জেলার মিঠাপুকুর থানা থেকে ওই কিশোরকে গ্রেফতার করা হয়। রোববার (১২)মে বিকেলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-১৩ এর  উপ-পরিচালক (মিডিয়া) স্কোয়াড্রন লিডার মাহমুদ বশির আহমেদ। প্রেসবিজ্ঞপ্তি সুত্রে জানা গেছে,গত পহেলা মে রংপুর নগরীর গণেশপুর বকুলতলা এলাকায় মো. মিরাজ ও তার অন্যান্য কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা ভাই ভাই হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট এর সামনে পটকা ফুটাতে থাকে। তবে এঘটনায় ২জন আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানাগেছে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন-প্রধান আসামী মেরাজ ও শ্ওান। এতে হোটেল ম্যানেজার মো.শাহরিয়ার (২৬) বিরক্তি প্রকাশ করে কিশোরে বাবা মা এর কাছে তাদের নামে অভিযোগ বলে জানান।তখন সেখান থেকে চলে যায় তারা।পরেরদিন ২ মে মিরাজ ও তার কিশোর গ্যাং সদস্যরা দেশীয় অস্ত্র দা, লোহার ধারালো কিরিচ, লোহার রড ইত্যাদি নিয়ে ভাই ভাই হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট এ হামলা চালায়। হামলায় হোটেলের ম্যানেজার  শাহরিয়ার গুরুতর আহত হন। কিশোর গ্যাংয়ের সেদিনের হামলার ভিডিও (সিসি টিভি ফুটেজ) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দ্রæত ছড়িয়ে পড়ে। এছাড়াও গণমাধ্যমে প্রচারিত হলে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। ঘটনার পর মেরাজের সাথে থাকা অন্য দুই জন পুলিশের কাছে গ্রেফতার হলেও মিরাজ গা ঢাকা দেয়। এ ঘটনায় হোটেল মালিক বাদী হয়ে ওই দিনেই রংপুর কোতয়ালীয় ৩জনের নাম উলেখ করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার পরপরই রংপুর-র‌্যাব-১৩ এর গোয়েন্দা দল ছায়া তদন্ত শুরু করে। ছায়া তদন্তের এক পর্যায়ে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে (রোববার) মিঠাপুকুর থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে কিশোর গ্যাংয়ের মূলহোতা মো. মিরাজ কে গ্রেফতার করা হয়। এ বিষয়ে রংপুর ‌র‌্যাব- ১৩ এর  উপ-পরিচালক (মিডিয়া) স্কোয়াড্রন লিডার মাহমুদ বশির আহমেদ জানান,গ্রেফতার কিশোর গ্যাংয়ের মুলহোতা মেরাজকে আইনি প্রক্রিয়া শেষ করে রংপুর মেট্রোপলিটন কোতয়ালী থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। সেই সাথে রংপুরে কিশোর গ্যাং মুক্ত করতে গোয়েন্দা তৎপরতা এবং নজরদারি রয়েছে বলে র‌্যাব জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *