রবিবার , ডিসেম্বর ৪ ২০২২
Home / সারা দেশ / হবিগঞ্জে পুলিশের নির্যাতনে আসামির মৃত্যুর অভিযোগ **

হবিগঞ্জে পুলিশের নির্যাতনে আসামির মৃত্যুর অভিযোগ **

হবিগঞ্জ সদর থানায় পুলিশের নির্যাতনে চেক ডিজঅনার মামলার আসামির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তবে বিষয়টি অস্বীকার করেছে পুলিশ।

সোমবার সকালে হবিগঞ্জ সদর থানা থেকে আসামিকে সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে গেলে ডা. মিঠুন চক্রবর্তী তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এর আগে রাত ২টার দিকে সদর থানার একদল পুলিশ আসামিকে তার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। নিহত আসামির নাম ফারুক মিয়া (৪৫)। তিনি শহরের মোহনপুর এলাকার সঞ্জব আলীর ছেলে। তিনি ১৫ হাজার টাকার একটি চেক ডিজঅনার মামলার আসামি ছিলেন। নিহতের ছেলে কলেজছাত্র সাঈদুল ইসলাম অভিযোগ করেন- রাত ২টার দিকে সদর থানার একদল পুলিশ বাড়িতে গিয়ে তার বাবাকে গ্রেফতার করে। পরে বাড়ি থেকেই মারতে মারতে বাবাকে থানায় নিয়ে আসে। এরপর থানায় এনেও রাতভর চালানো হয় নির্যাতন। এক পর্যায়ে তার বাবা জ্ঞান হারিয়ে ফেললে সকালে পুলিশ তাকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে যায়। এ সময় সদর হাসপাতালের চিকিৎসক মিঠুন চক্রবর্তী তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ব্যাপারে চিকিৎসক মিঠুন চক্রবর্তী বলেন- নিহতের শরীরে অসংখ্যা আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে এই মুহূর্তে মৃত্যুর আসল কারণ বলা যাচ্ছে না। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট হাতে পেলেই মৃত্যুর আসল কারণ জানা যাবে।

হবিগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা বলেন- আসামিকে রাত ২টার দিকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তিনি অনেকটা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। যার ফলে তিনি স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে মারা যেতে পারেন। তবে যদি তার মৃত্যুর কারণে পুলিশ দায়ী হয়, তাহলে ওই পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

About admin

Check Also

ডাকাতির পর গৃহবধূকে খুন, ৬ আসামির যাবজ্জীবন

কুমিল্লায় ডাকাতির পর গৃহবধূকে হত্যার দায়ে ৬ আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত। সেই সঙ্গে …

চৌগাছায় জাতীয় পার্টির সম্মেলন সভাপতি নাজিম-সম্পাদক মকবুল

যশোরের চৌগাছায় জাতীয় পার্টির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।  বুধবার (৩০ নভেম্বর) বিকেলে উপজেলা জাতীয় পাটির …

প্রধানমন্ত্রী’র জনসভা সফল করার লক্ষ্যে লোহাগাড়া উপজেলা পরিষদের প্রস্তুতি সভা

আগামী ৪ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম মহানগর-উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে বিশাল জনসভায় প্রধান অতিথি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *