শুক্রবার , মে ১৭ ২০২৪
Home / সারা দেশ / নাগেশ্বরীর সাপখাওয়ায় আদালতের নিষেধাজ্ঞা আমান্য করে বিবাদমান জমিতে বসতঘর তৈরী করছে

নাগেশ্বরীর সাপখাওয়ায় আদালতের নিষেধাজ্ঞা আমান্য করে বিবাদমান জমিতে বসতঘর তৈরী করছে

মোঃ মজিবর রহমান নাগেশ্বরী

নাগেশ্বরীতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা আমান্য করে বিবাদমান জমিতে বসতঘর তৈরী করছে আব্দুস সাত্তার গং। বাদী নিরুপায় হয়ে সুষ্ঠ বিচার না পেয়ে থানার দ্বারে দ্বারে ঘুরছে। মামলার বিবরণ ও বাদী সুত্রে জানা গেছে দক্ষিণ সাপখাওয়া গ্রামের ধনের উদ্দিন এর পুত্র মোঃ আব্দুর রহমান গিত ১৯৮৫ সালে ৮১৩২ নং দলিল মূলে ধনদ্দির নিকট থেকে ১৬ শতক ,১৯৮০ সালে ৫৮৭৪ নং দলিল মূলে পনির উদ্দিনের নিকট থেকে ৮ শতক জমি এবং ১৯৮০ সালে ৮৩৭৪ নং দলিল মূলে আব্দুস ছাত্তার মোক্তার এর নিকট থেকে ১১ শতকসহ মোট ৩৫ শতক জমি ত্রুয় সুত্রে দীর্ঘদিন থেকে ভোগ দখল করে আসছেন। চতুর ও ধৃর্তবাজ আব্দুস সাত্তার মোক্তার বিত্রুয়কৃত জমি চালাকী করে বিত্রিুর আগে গোপনে স্ত্রী ও পুত্র দ্বয়ের নামে ৩৩ শতক জমি কবলা করে দেন। যাহার কোন কার্যকারিতা বা আইনগত বৈর্ধতা নেই। শুধু তাই নয় ঔ ভুয়া দলিল দিয়ে কৌশলে নিজ নামে খারিজ এবং আর এস ডিপি রেকর্ড করেন । জমির প্রকৃত মালিক আঃ রহমান জানতে পেরে ভুয়া খারিজ এবং আর এস
ডিপি রেকর্ডের উপর সহকারী কমিশনার (ভুমি ) নাগেশ্বরী অফিসে গত ১০.০৪.২০১৮ইং তারিখে ১৮/১৮ নং মোকদ্দমা দায়ের করেন। এতে অব্দুস সাত্তার গং ক্ষিপ্ত হয়ে গত ১৫.০৪.২০১৮ইং লাঠি,বল্লম,দা,কাচি,কুড়াল ও মারাতœক অস্ত্রসহ বাদীর ৩৫ শতক জমিতে লাগানো পাটও ধুমসা কাটিয়ে নেওয়ার অপচেষ্টা করেন। কিন্ত বাদী পক্ষ বাধা প্রদান করিলে তারা ফিরে যেতে বাধ্য হন। আসামীরা যাতে অবৈর্ধ ভাবে জমি দখল করিতে না পারে এই মর্মে বিবাদীর বিরুদ্ধে স্বত্ব সাব্যস্ত চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার ডিত্রুীর জন্য আদালতে মোকদ্দমা দাখিল করেন। বিজ্ঞ আদালত গত ১১.০২.২০২০ইং তারিখে উক্ত জমিতে উভয়
পক্ষের জন্য নিষেজ্ঞা জারী করেন। বাদী পক্ষ আদালতের রায় মানলেও আসামী আব্দুস সাত্তার গং ২৩ ডিসেম্বর/২০১৯ইং তারিখে উক্ত জমিতে অবৈর্ধ ভারে ঘর উত্তোলন করার চেষ্ট করেন। বাদী আব্দুর রহমান এতে বাধা প্রদান করে কিন্ত আসামীরা তাকে হত্যার হুমকি দিলে সে ভয়ে নাগেশ্বরী থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেন। এর ফলে এস এই ফারুকি ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘর তোলার বিভিন্ন মালামাল জব্দ করেন এবং ঊভয় পক্ষকে জমির কাগজপত্রসহ গত- ০১.০১.২০২০ইং নাগেশ্বরী থানায় উপস্থিত থাকার জন্য বলেন। এ দিকে গোপনে বাদীকে না জানিয়ে আসামীদের জব্দকৃত টিন ও কাঠ বাঁশ ফেরত দেন।

মালামাল ফেরত পেয়ে আসামীরা থানায় উপস্থিত না হয়ে আবারো গত ২৩.০১.২০২০ইং তারিখে উক্ত জমিতে মাটি কাটা সহ ঘর উত্তোলন করার চেষ্টা করে। বাদী আ: রহমান গত ২৪.০১.২০২০ইং তারিখে নাগেশ্বরী থানায় আরো একটি লিখিত অভিযোগ করেন। এরই পেক্ষিতে এস আই জুয়েল আসামী মিন্টু কে ঘটনাস্থল থেকে গ্রেফতার করে। পরে ঔ জমিতে না যাওয়ার শর্তে অঙ্গীকার নামায় ছেড়ে দেন। বার বার পার পাওয়ায় আসামীরা আবারো ১৬.০২.২০২০ইং তারিখে ঘর তোলার চেষ্টা করলে নাগেশ্বরী থানার এস আই আলিফনুর ঘটনাস্থলে গিয়ে আদালতের নিষেজ্ঞার কথা জানিয়ে দেন এবং ঔ বিবাদমান জমিতে কোন প্রকার ঘর বা দখল করা যাবেনা বলে সতর্ক করেন। আসামীরা এতই ক্ষ্যান্ত না হয়ে গত ১৩.০৫.২০২০ইং তারিখে গভীর রাতে নুতন করে একটি খড়ের ঘর তৈরী করেন। ফলে বাদী পক্ষ বর্তমানের উক্ত আসামীদের ভয়ে জীবন যাপন করছে।

অত্র এলাকার অভিজ্ঞ মহল মনে করেন সংশ্লিষ্ট কৃর্তপক্ষ সরেজমিন তদন্ত করে সঠিক সমাধান দিলে হয়ত বড় ধরনের কোন অপ্রতিকর পরিবেশের সৃষ্টির হাত থেকে উভয় পক্ষ রক্ষা পাবেন।

About admin

Check Also

রংপুরে কিশোর গ্যাংয়ের মুলহোতা মেরাজ গ্রেফতার

রেখা মনি,রংপুর ব্যুরোঃ রংপুরে র‌্যাবের জালে বন্দি কিশোর গ্যাংয়ের মুলহোতা মেরাজ।কয়েকদিন আগে রংপুর নগরীর গণেশপুরে হোটেল ব্যবসায়ীর উপর হামলাকারী কিশোর গ্যাংয়ের মূলহোতা মো.মেরাজ (২০)কে গ্রেফতার করেছে রংপুর র‌্যাব-১৩।র‌্যাব বলছেন রংপুর জেলার মিঠাপুকুর থানা থেকে ওই কিশোরকে গ্রেফতার করা হয়। রোববার (১২)মে বিকেলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-১৩ এর  উপ-পরিচালক (মিডিয়া) স্কোয়াড্রন লিডার মাহমুদ বশির আহমেদ। প্রেসবিজ্ঞপ্তি সুত্রে জানা গেছে,গত পহেলা মে রংপুর নগরীর গণেশপুর বকুলতলা এলাকায় মো. মিরাজ ও তার অন্যান্য কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা ভাই ভাই হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট এর সামনে পটকা ফুটাতে থাকে। তবে এঘটনায় ২জন আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানাগেছে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন-প্রধান আসামী মেরাজ ও শ্ওান। এতে হোটেল ম্যানেজার মো.শাহরিয়ার (২৬) বিরক্তি প্রকাশ করে কিশোরে বাবা মা এর কাছে তাদের নামে অভিযোগ বলে জানান।তখন সেখান থেকে চলে যায় তারা।পরেরদিন ২ মে মিরাজ ও তার কিশোর গ্যাং সদস্যরা দেশীয় অস্ত্র দা, লোহার ধারালো কিরিচ, লোহার রড ইত্যাদি নিয়ে ভাই ভাই হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট এ হামলা চালায়। হামলায় হোটেলের ম্যানেজার  শাহরিয়ার গুরুতর আহত হন। কিশোর গ্যাংয়ের সেদিনের হামলার ভিডিও (সিসি টিভি ফুটেজ) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দ্রæত ছড়িয়ে পড়ে। এছাড়াও গণমাধ্যমে প্রচারিত হলে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। ঘটনার পর মেরাজের সাথে থাকা অন্য দুই জন পুলিশের কাছে গ্রেফতার হলেও মিরাজ গা ঢাকা দেয়। এ ঘটনায় হোটেল মালিক বাদী হয়ে ওই দিনেই রংপুর কোতয়ালীয় ৩জনের নাম উলেখ করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার পরপরই রংপুর-র‌্যাব-১৩ এর গোয়েন্দা দল ছায়া তদন্ত শুরু করে। ছায়া তদন্তের এক পর্যায়ে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে (রোববার) মিঠাপুকুর থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে কিশোর গ্যাংয়ের মূলহোতা মো. মিরাজ কে গ্রেফতার করা হয়। এ বিষয়ে রংপুর ‌র‌্যাব- ১৩ এর  উপ-পরিচালক (মিডিয়া) স্কোয়াড্রন লিডার মাহমুদ বশির আহমেদ জানান,গ্রেফতার কিশোর গ্যাংয়ের মুলহোতা মেরাজকে আইনি প্রক্রিয়া শেষ করে রংপুর মেট্রোপলিটন কোতয়ালী থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। সেই সাথে রংপুরে কিশোর গ্যাং মুক্ত করতে গোয়েন্দা তৎপরতা এবং নজরদারি রয়েছে বলে র‌্যাব জানান।

বেলকুচিতে ভোট কেনার সময় ইউপি চেয়ারম্যান আটক

সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী আমিনুল ইসলামের পক্ষে দোয়াত কলম প্রতিকের পক্ষে টাকা দিয়ে ভোট …

বাগেরহাটে উৎসবমুখর পরিবেশে চলছে ভোটগ্রহণ

বাগেরহাটের দুই উপজেলায় উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। বুধবার (৮ মে) সকাল থেকে বৃষ্টি উপেক্ষা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *