সোমবার , জানুয়ারি ১৭ ২০২২
Home / সারা দেশ / ১৭ বছরের কিশোরীকে রাতভর ধর্ষণ, রক্তক্ষরণে মৃত্যু

১৭ বছরের কিশোরীকে রাতভর ধর্ষণ, রক্তক্ষরণে মৃত্যু

চট্টগ্রামের একটি পোশাক কারখানার কিশোরী শ্রমিককে (১৭) অপহরণ করে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে নিয়ে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ উঠেছে তিন বন্ধুর বিরুদ্ধে। তারা হল – তৈয়ব হোসেন (২১) ও তার বন্ধু হাসান (২৩) ও আমজাদ হোসেন রায়হান (২০)। গত সোমবার রাতে মেঘনা শিল্পাঞ্চলের বেপারীবাজারসংলগ্ন তৈয়ব হোসেনের ভাড়া বাড়িতে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে ওই কিশোরীর মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত তৈয়ব এবং তাঁর দুই বন্ধু হাসান ও আমজাদ হোসেন রায়হানকে গ্রেপ্তার করেছে সোনারগাঁ থানার পুলিশ। গ্রেপ্তার তৈয়ব হোসেন কুমিল্লার নাঙ্গলকোটের উত্তর বায়েরা গ্রামের জালাল আহমেদের ছেলে। পুলিশ লাশ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা হাসপাতাল মর্গে এবং গ্রেপ্তারকৃতদের জেলা আদালতে পাঠিয়েছে। এ ব্যাপারে নিহতের পিতা গতকাল বিকেলে সোনারগাঁ থানায় নারী নির্যাতন আইনে একটি মামলা করেছেন। ভুক্তভোগী বায়েজিদ বোস্তামী থানার আমিন কলোনির এক ভাড়াটিয়ার মেয়ে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ৯ অক্টোবর রাত ৯টার দিকে গার্মেন্টস ছুটির পর কিশোরী বাড়িতে না ফেরায় তার মা-বাবা, আত্মীয়-স্বজন তাকে খোঁজাখুঁজি করেন। পরে মেয়েকে না পেয়ে বায়েজিদ বোস্তামী থানায় একটি জিডি করেন কিশোরীর মা। পরে জানতে পারেন যে তাঁর মেয়েকে তৈয়ব, তাঁর বন্ধু মামুন (১৯), হাসান ও আমজাদ অপহরণ করে সোনারগাঁ উপজেলার মেঘনা নিউ টাউন এলাকার বেপারীবাজারসংলগ্ন জনৈক সাগর প্রধানের ভাড়া বাড়িতে আটকে রেখেছেন। ধর্ষণের কারণে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হলে তৈয়ব ও তাঁর বন্ধুরা কিশোরীকে চিকিৎসার জন্য মোগরাপাড়া চৌরাস্তার মা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। স্থানীয়রা ৯৯৯-এ ফোন দিলে সোনারগাঁ থানার উপপরিদর্শক শরিফুল ইসলাম কিশোরীর লাশ উদ্ধার করেন এবং সাগরের বাড়ি থেকে তৈয়ব, হাসান ও রায়হানকে গ্রেপ্তার করে।

কিশোরীর মা বলেন, ‘আমার মেয়ে গার্মেন্টের বেতন নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে তৈয়ব ও তার বন্ধুরা অপহরণ করে সোনারগাঁ এনে নির্যাতন করে মেরে ফেলেছে। আমি সন্তান হত্যার সুষ্ঠু বিচার চাই।’

অভিযুক্ত তৈয়ব হোসেনের দাবি, কিশোরীর সঙ্গে দুই বছর ধরে তাঁর প্রেমের সম্পর্ক। পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী তাঁরা ৯ অক্টোবর চট্টগ্রাম থেকে পালিয়ে সোনারগাঁয় আসেন। ১০ অক্টোবর তাঁরা মেঘনা নিউ টাউন এলাকায় বিয়ে করেন। বিয়ের সাক্ষী হিসেবে হাসান ও রায়হান স্বাক্ষর করেন। বিয়ের পর শারীরিক সম্পর্ক করলে কিশোরীর রক্তক্ষরণ শুরু হয়। পরে মা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কিশোরীর মৃত্যু হয়। সোনারগাঁ থানার থানার ওসি হাফিজুর রহমান জানান, গ্রেপ্তার তিনজনকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে আজ বুধবার শুনানি হবে।

About admin

Check Also

ভূরুঙ্গামারীতে ব্যক্তি উদ্যোগে কম্বল বিতরণ

  ভূরুঙ্গামারী(কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধিঃ ভূরুঙ্গামারীতে ব্যক্তি উদ্যোগে দুঃস্থ্যদের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। বুধবার ( ১২ জানুয়ারি …

রাজারহাটে সাংবাদিকদের সঙ্গে এলজিআরডি’র যুগ্ম সচিবের মতবিনিময় ও শীতবস্ত্র বিতরণ

রফিকুল ইসলাম, নিজস্ব প্রতিনিধিঃ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব ও রাজারহাট উপজেলার কৃতি …

ভূরুঙ্গামারীতে প্রেসক্লাবের উদ্যোগে কম্বল বিতরণ

ভূরুঙ্গামারী(কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধিঃ ভূরুঙ্গামারীতে প্রেসক্লাবের উদ্যোগে পত্রিকার হকার ও দুঃস্থ্যদের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। বুধবার সকালে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *